Thursday, July 30, 2020

বাগমারায় সরকারি অনুদান ছাড়াই স্বেচ্ছাশ্রমে তৈরি হলো সাঁকো

Be the first to comment!
ক'রোনা, ভারী বৃষ্টি, আর বন্যা সব মিলে যেন দেশকে নাজেহাল করে ছেড়েছে। দেশে বর্তমানে অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই খারাপ। যার কারণে সরকারি সহায়তা পুরোপুরিভাবে মিলছে না। যতটুকু সহায়তার বরাদ্দ মিলছে ততটুকু দিয়ে জনগণের পুরোপুরি চাহিদা মেটানো যাচ্ছে না। অনেক বছর থেকেই বাগমারা থানার দ্বীপপুর ইউনিয়নে এই জায়গা টুকু তে একটি ব্রিজ করা খুব জরুরি ছিল। অথচ কোন নেতাকর্মী তা করতে পারেনি ব্যর্থ হয়েছেন।

এবার ভারী বর্ষণ আর বন্যার কারণে জায়গাটা পুরোপুরি ভেঙ্গে নষ্ট হয়ে যায় দুই পারে এপারে ওপারে মিলে অনেক মানুষ বসবাস করত দুইবার এই যাতায়াত করা খুব জরুরি ছিল। জায়গাটুকু ভেঙ্গে নষ্ট হয়ে যাবার পর সরকারি সহায়তা না মেলার কারণে, স্থানীয় যুবকরা উদ্যোগ নিয়ে পার্শ্ববর্তী গ্রাম সহ সব জায়গা থেকে বাস সংগ্রহ করে বাঁশ দিয়ে তৈরি করেছেন ব্রিজ বা সাঁকো।

ওই এলাকার যুবকদের উদ্যোগে নারী পুরুষ যুবক বৃদ্ধ সবাই মিলে তিনদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে এই সাঁকোটি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে। সাঁকোটি তৈরি করতে একসময় টাকার অভাব দেখা দেয় তবুও পিছপা হননি, দ্বীপপুর ইউনিয়নের ওই যুবকেরা। অবশেষে সাঁকোটি তৈরি করে সফলতার গল্প শোনায় তারা। নিচের লেখা এবং কথাগুলি সেখানকার স্থানীয় যুবকদের। যা হুবহু তুলে ধরা হলো।

দীর্ঘ ৩ দিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে দ্বীপপুর ইউনিয়নের লাউবাড়িয়া গ্রামের জনগণ অবশেষে সাঁকো তৈরি করতে সক্ষম। কোন রকম সরকারি বা জনপ্রতিনিধির সাহায্য ছাড়াই এ সাঁকো তৈরি করার উদ্যেগ নেয় লাউবাড়িয়ার তরুণ প্রজন্মের ছেলেরা। এতে করে অনেক সমস্যা তৈরি হয় বিশেষ করে আর্থিক সমস্যা তবুও কোন রকম পিছিয়ে পড়েনি যুব সমাজ।অসংখ্য,অসংখ্য ধন্যবাদ লাউবাড়িয়া গ্রামের জনগণ কে যিনারা সব সময় সাহস জুগিয়েছে আমাদের কে।

যখন যা চেয়েছি,যেটা চেয়েছি,কেও না করেনি বলেছে লাগলে আরো দিবো তবুও পিছিয়ে পড়া যাবেনা। বিশেষ করে ধন্যবাদ জানায় প্রিয় চাকরিজীবী বড় ভাইদের যিনারা কাছে থেকে সহযোগিতা না করতে পারলেও আর্থিক ভাবে সহযোগিতা করেছেন।

একটা কথা অস্বীকার করলে ভুল হবে পার্শ্ববর্তী গ্রামের মানুষেরও কিছু সহযোগিতা পেয়েছি বিশেষ করে মীরপুর ও হাসানপুর তাদের কাছ থেকে কিছু মূল্যবান বাঁশ দিয়েছেন।পরিশেষে ধন্যবাদ জানায় ফেসবুক ব্যবহার কারী বন্ধুদের।
  • 0Blogger Comment
  • Facebook Comment

Post a Comment