Wednesday, July 29, 2020

অ’সুস্থ কর্মীকে দেখতে বাংলাদেশে আসলেন সৌদি মালিক

Be the first to comment!
নাম সুধীর শীল। বাড়ি কুমিল্লার বরুড়া থানায়। ১৪ নম্বর লক্ষ্মীপুর ওয়ার্ডের নলুয়া চাঁদপুর গ্রামে তার বাড়ি। সৌদি আরবে গিয়ে প্রায় ১৪ বছর যাবৎ একই মালিকের অধীনে কাজ করেছিলেন। তারপর সুধীর শীল অসুস্থ হয়ে পড়লে বাংলাদেশে ফেরত আসেন। বাংলাদেশের দীর্ঘ চিকিৎসার পর সুধীর শিল সুস্থ হয়ে না ওঠায়, সৌদি আরবের মালিক মানে যার অধীনে কাজ করতেন সৌদি নাগরিক তিনি বাংলাদেশ বিমানের টিকিট কেটে সরাসরি চলে আসেন কুমিল্লা বরুড়া থানায় তার অসুস্থ কর্মীকে দেখতে।

আসলেই এক মহান মহানুভবতা। যদি মালিক এবং শ্রমিকের মধ্যে খুব ভালো সম্পর্ক না থাকতো তাহলে সৌদি নাগরিক তার কর্মীকে দেখতে বাংলাদেশে আসত না তার মানে বোঝা যাচ্ছে খুব ভালো মালিক-শ্রমিক দুজনের মধ্যে সম্পর্ক।

এর আগে আমরা বাংলাদেশের দেখেছি আমেরিকা ইংল্যান্ড কানাডা অস্ট্রেলিয়া পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকেও প্রেমের টানে ছুটে এসেছে বাংলাদেশে কোন এক মেয়ে এমন অনেক ঘটনাই অতীতে আমরা দেখেছি। কিন্তু শ্রমিকের প্রতি ভালবাসা দেখিয়ে বিদেশ থেকে এই প্রথম কোনো এক মালিক ছুটে আসলেন তার কষ্টের মুহূর্তে। জানা যায় এর আগে সৌদি নাগরিক ওই মালিক সৌদি আরব থেকে সুধীর সিলেবাস আয় ফোন দিয়ে সবরকম খোঁজখবর নিতেন। পাশাপাশি সুধীর শীলকে অর্থনৈতিকভাবে বিভিন্ন সময় সাহায্য সহায়তা করে আসছিলেন।

এবার যখন সৌদি ওই মালিক দেখলেন সুধীর শীল একটু বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন তাকে একবার অন্তত শেষ দেখা দেখে আসি এমনটা ভাবনা থেকে সৌদি আরব থেকে মালিক নিজেই ছুটে এসেছেন বাংলাদেশের কুমিল্লার বরুড়া থানা। এদিকে সৌদি আরব থেকে জুব্বা পাঞ্জাবি পরা সুঠাম দেহের অধিকারী সেই মালিককে দেখতে প্রতিদিনই সুধীর শীলের বাসায় ভিড় জমাচ্ছেন এলাকাবাসী। শুধু তাই নয় জারকান এই খবরটি পৌঁছেছে অন্তত সৌদি আরবের ওই নাগরিককে দেখতে ছুটে আসছেন অনেক দূর-দূরান্ত থেকে অনেক মানুষ।

ধর্ম বর্ণ শেষে সুধীর শীল এবং সৌদি মুসলিম নাগরিক তাদের ভিতরের ভালোবাসা মহানুভবতা দেখে রীতিমতো এলাকাবাসী বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। মানুষ বলছে কে হিন্দু কে মুসলিম কে ক্রিস্টান কে অন্য ধর্মের এটা দেখার সময় নয় পৃথিবীতে যে ব্যক্তির মানবতা আছে তিনি মানুষ প্রকৃত মানুষ। আর যে ব্যক্তির মানবতা নেই সে পশুর সমতুল্য সে হোক যে কোন ধর্মের ব্যাক্তি। তবে এটা আশ্চর্যের ব্যাপার যে সৌদি আরবের একজন মুসলিম ঈমানদার ব্যক্তি বাংলাদেশের খেটেখাওয়া একজন হিন্দু শ্রমিকের মধ্যে এত ভালো সম্পর্ক আসলে একটু ভাববার বিষয়।

এদিকে সৌদি ওই নাগরিকের কাছ থেকে জানা যায় যে, সুধীর শীল দীর্ঘ ১৫ বছর কাজ করেছেন ওই সৌদি নাগরিকের বাসায়। অথচ এত দীর্ঘ সময় কাজ করার পরেও কখনো একটি মুহূর্তের জন্যেও মালিক এবং শ্রমিক এদের দুজনের মধ্যে মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়নি। বরঞ্চ মালিক শুনেছেন শ্রমিকের কথা, শুনেছেন মালিকের কথা। এভাবে ১৫ টি বছর সুধীর শীল কাটিয়ে দেন সৌদি আরবের প্রবাস জীবনে।

এছাড়াও বাংলাদেশের মানুষেরা ও মানবতার দিক দিয়ে কম কিসে? মানবতার দেশিই তো বাংলাদেশ। কারণ পুরো পৃথিবীতে বাংলাদেশিরা মানবতা দেখিয়েছে বিশাল পর্যায়ের যা পৃথিবীর অন্য দেশের মানুষেরা দেখে রীতিমতো আশ্চর্য হয়ে যান। বিশেষ করে বাংলাদেশীদের মানবতা ভালোবাসা ধার্মিকতা সব দিক দিয়ে এগিয়ে রয়েছেন বিশ্বে। যার কারণে পৃথিবীর প্রায় সকল দেশের মানুষেরা বাংলাদেশি শ্রমিকদের খুব ভালোবাসেন আদর করে।
  • 0Blogger Comment
  • Facebook Comment

Post a Comment