Wednesday, July 29, 2020

পুলিশ সার্জেন্ট অফিসারকে পেটালেন যুবলীগ নেতা!

Be the first to comment!
পুলিশের সার্জেন্ট ফরহাদ। ডিউটি পালন করছিলেন মিরপুরের কালসিতে। সেখানে একটি বাস কে কেন্দ্র করে ঘটনার সূত্রপাত। মিরপুরের কালশীতে, বসুমতি নামের একটি বাস বিকল হয়ে রাস্তার উপর পড়ে থাকে সে বাসটি সরানোর সময় স্থানীয় যুবলীগ নেতা ও পুলিশের সার্জেন্ট ফরহাদের সাথে তর্কাতর্কি শুরু হয়। তারপর বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে এক পর্যায়ে ধস্তাধস্তি শুরু হয় তাদের দুজনের মধ্যে।

এদিকে জানা যায় গালমন্দ করা ও দলবল নিয়ে এসে মারধর করা জুয়েল তিনি পল্লবী থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। ভুক্তভোগী সার্জেন্ট ফরহাদের বক্তব্য অনুযায়ী জানা যায় যে, প্রথমে পল্লবী থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা ফরহাদকে গালমন্দ করতে থাকে পরবর্তীতে পুলিশের সার্জেন্ট ও যুবলীগ নেতা ফরহাদ দুজনে ধস্তাধস্তিতে জড়ায়।

এরপর দুজনেই সেখান থেকে চলে যায় পরবর্তীতে পল্লবী থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা তিনি দলবল নিয়ে এসে পুলিশ বক্সে হামলা করে এবং সেখানে লাথি ঘুসি মারে জুয়েল রানা। প্রথম দফায় তর্কাতর্কি ধস্তাধস্তির শেষ হলেও সেখানে ক্ষান্ত থাকেননি জুয়েল রানা পরবর্তীতে তার দলবল নিয়ে এসে আবার সার্জেন্ট পুলিশ বক্স এসে আমাদের মারধর করে যায়। এমনটাই বলছিলেন ভুক্তভোগী পুলিশের সার্জেন্ট ফরহাদ।

এছাড়াও পল্লবী থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানার সাথে যোগাযোগ করার জন্য চেষ্টা করা হলে। জুয়েল রানার সাথে যোগাযোগ করা যায়নি। তার বাসায় যেয়ে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে সেখানেও তাকে পাওয়া যায়নি এমনকি তাঁর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা গেলেও মুঠোফোনেও জুয়েল রানা কে পাওয়া যায়নি জুয়েল রানার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় পল্লবী থানায় মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী সার্জেন্ট ফরহাদ। পল্লবী থানার ওসি এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আইনি পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানায়। যত দ্রুতসম্ভব এই বিষয়ে আইনী ব্যবস্হা গ্রহন করা হবে, বলে জানা যায়। সুত্র: সময়
  • 0Blogger Comment
  • Facebook Comment

Post a Comment